হেলিকপ্টারে বিয়ে করতে গেলেন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রোকৌশল

হেলিকপ্টারে বিয়ে করতে গেলেন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রোকৌশল
হেলিকপ্টারে বিয়ে করতে গেলেন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রোকৌশল

আলোকিত রাজশাহী: হেলিকপ্টারে গিয়ে বিয়ে করে নববধূকে নিয়ে ফিরলেন নাটোরের বাগাতি পাড়া উপজেলার সোনাপুর পাবনাপাড়া এলাকার প্রোকৌশল হারুন অর রশিদ বাদশা। গ্রামের মধ্যে হেলিকপ্টারে নববধূকে বাড়ি নিয়ে আশায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে এলাকায়।হেলিকপ্টারে বিয়ে করতে গেলেন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রোকৌশল

এলাকাবাসী জানান, নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার সোনাপুর পাবনাপাড়া এলাকার স্কুল শিক্ষক মাওলানা নূরুল ইসলামের ছেলে হারুন অর রশীদ বাদশা। স্কুল শিক্ষক নূরুল ইসলামের ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন বাদশার মতোই। শনিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে বাদশা হেলিকপ্টারে গিয়ে নববধূকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

একসুত্রে জানা যায়, বরের বাড়ি থেকে প্রাইভেটকারে করে ৫০০ গজ দূরে স্কুল মাঠে গিয়ে তার দুই দুলাভাই ও এক ভাগ্নিকে নিয়ে সোনাপুর স্কুল মাঠ থেকে হেলিকপ্টারে উঠেন বাদশা। হেলিকপ্টারে বরসহ চারজন হলেও তার আত্মীয় স্বজনরা বাসে করে কনে বাড়ি রাজশাহীতে একটি কমিউনিটি সেন্টারে পৌঁছায়। সেখানে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার রাজাবাড়ি হাট এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট নুহুন নবীর মেয়ে প্রোকৌশল উর্মীকে আক্তারকে বিয়ে করে বিকেলে ফিরেন বাদশা।

ছোটবেলায় বাদশাহকে তার বাবা হেলিকপ্টারে করে বিয়ে দিতে চেয়েছিলেন । আর এই বিয়েতে স্বপ্ন পূরণ হলো তার।

নূরুল ইসলাম জানান, তার ছেলে হারুন অর রশীদ বাদশা বর্তমানে পাবনার ঈশ্বরদী পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের  প্রোকৌশল হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তার ছেলে ও বউমা দু’জনেই নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলোজি (বাউয়েট) এ পড়ালেখা করেছেন। তবে কনে উর্মী আক্তার কোন চাকরীতে যোগ দেননি। আর পারিবারিকভাবে তাদের এ বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

বর হারুন অর রশীদ বাদশা বলেন, আমার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন আমি হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে করতে যাওয়ার। সেই স্বপ্ন আজ পূরণ হলো।

বরযাত্রী দয়ারামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুর ইসলাম মিঠু বলেন, হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে তার এলাকায় এই প্রথম । তার জানা মতে বাগাতিপড়া উপজেলায় এমন যানে গিয়ে বিবাহের ঘটনা ঘটেনি।

গ্রামে এই প্রথম হেলীকপ্টারে বিয়ে দেখে আনন্দিত এলাকাবাসী।  সোনাপুর স্কুল মাঠে আশেপাশের ও দূর দূরান্ত থেকে হাজার হাজার মানুষ হাজির হয় বরযাত্রা দেখতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here